আফগানিস্তানে সরকার গঠনের পথে  তালেবান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : আফগানিস্তানে তালেবান সরকারের কাঠামো ও নাম নিয়ে আলোচনা হয়েছে । শিগগিরই সরকারের প্রক্রিয়া সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো হবে বলে জানিয়েছে তালেবান।

তালেবানের এক শীর্ষস্থানীয় নেতা আফগান সংবাদমাধ্যম তোলো নিউজকে বলেছেন, তাদের নেতৃত্ব দোহায় আলোচনায় ব্যস্ত রয়েছে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ও আফগানিস্তানের রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে তালেবান যোগাযোগ করছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

তালেবানের রাজনৈতিক শাখার উপ-প্রধান মোল্লাহ আব্দুল গনি বারাদার বলেছেন, এই মুহূর্তটি তালেবানের জন্য একটি পরীক্ষা। এই সময়ে আমরা একটি পরীক্ষার মুখোমুখি হচ্ছি। কারণ এখন দেশের জনগণের নিরাপত্তার দায়িত্ব আমাদের কাঁধে।’

কাবুলের বাসিন্দা আহমদ ফরিদ বলেন, ‘এমন এক সরকার হওয়া উচিত যেখানে সবার অংশগ্রহণ থাকবে। সেখানে স্থিতিশীলতা থাকতে হবে। কাবুলের আরেক বাসিন্দা ফজল রাবি তোলো নিউজকে বলেন, ‘দেশব্যাপী নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। কারণ মানুষ যুদ্ধে ক্লান্ত।’

আফগানিস্তানের কমিউনিস্ট সরকার ও তাদের ঘনিষ্ঠ মিত্র সোভিয়েত ইউনিয়নের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য পরিচিত হিজব-ই-ইসলামির নেতা গুলবুদ্দীন হেকমাতিয়ার বলছেন, আশরাফ গনির ব্যর্থতা দেশকে আজ এমন একটি পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দিয়েছে।

শান্তি আলোচনা এগিয়ে নিতে গঠিত একটি স্বঘোষিত পরিষদের সদস্য হেকমাতিয়া রোববার সন্ধ্যায় আগে রেকর্ড করা একটি বার্তায় বলেন, দুর্নীতিগ্রস্ত সরকারের মধ্যে সহিংসতা বন্ধ ও আফগানিস্তানের সংকট শান্তিপূর্ণভাবে শেষ করার কোনও প্রস্তুতি দেখা যায়নি।

আফগানিস্তানের ন্যাশনাল সলিডারিটি পার্টির প্রধান আফগান রাজনীতিবিদ সৈয়দ ইসহাক গাইলানি বলেছেন, আফগানিস্তানের এমন একটি সরকার ব্যবস্থা কার্যকর করা উচিত; যারা গত দুই দশকের অর্জনগুলো সংরক্ষণ করবে।

রোববার তালেবান কাবুল দখলের পর দেশত্যাগকারী প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি সম্পর্কে সৈয়দ গাইলানি বলেন, আশরাফ গনি রাষ্ট্রদ্রোহ করেছেন এবং তিনি দেশত্যাগ করেছেন। এখন তাদের (তালেবান) দ্রুত সরকার গঠন করা উচিত। অন্যথায়, মানুষ উদ্বেগের মধ্যে থাকবে।

সশস্ত্রগোষ্ঠী তালেবান মাত্র ১০ দিনের ব্যবধানে আফগানিস্তান দখল করেছে। রোববার তারা কোনও ধরনের প্রতিবন্ধকতা ছাড়াই দেশটির রাজধানী কাবুলে ঢুকে পড়ে। এর মধ্য দিয়ে মার্কিন সেনাদের সম্পূর্ণ প্রত্যাহারে ৩১ আগস্টের সময়সীমার দুই সপ্তাহেরও বেশি আগে তালেবান দেশ দখল করেছে।

তালেবানের অভিযানের মুখে রোববার মন্ত্রিসভার বেশ কয়েকজন সদস্য ও জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাকে নিয়ে দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি। যুক্তরাষ্ট্রসহ বিদেশি সেনারা তাদের নিজ নিজ দূতাবাসের কর্মী ও নাগরিকদের সরিয়ে নিতে ব্যস্ত রয়েছে।

সোমবার সকালের দিকে কাবুল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে যুক্তরাষ্ট্রের সৈন্যদের দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার অপেক্ষায় থাকা একটি সামরিক হেলিকপ্টারে হুড়োহুড়ি করে উঠতে গিয়ে অন্তত পাঁচ আফগানের প্রাণহানি ঘটেছে। এছাড়া বিমানের চাকায় চড়ে দেশ ছাড়ার চেষ্টার সময় চলন্ত বিমান থেকে তিন আফগান পড়ে গেছে।