সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গাছ কাটার প্রতিবাদে মানববন্ধন

চ্যানেল ৯৬বিডি.কম,

ঢাকা : রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গাছ কাটার প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।গাছ কাটার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছেন দেশের কবি, লেখক, শিল্পী, ছোট কাগজ ও সংস্কৃতি কর্মীরা।

শুক্রবার (৭ মে) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের বিপরীত পাশে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের প্রবেশ পথে ছবির হাটে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের ঐতিহাসিক একটি স্থান হচ্ছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান। এই সবুজ উদ্যানটি ঢাকা শহরের একটি অক্সিজেন ভান্ডার। এই অক্সিজেন ভান্ডারের ওপর নজর পড়ছে কুচক্রী ব্যবসায়ীদের।

এখানের গাছ কেটে রেস্তোরাঁ তৈরি করার চেষ্টা করছে তারা। অক্সিজেন ভান্ডারকে বানানোর চেষ্টা করছে ব্যবসায়খানা। যেটি আমরা কখনও হতে দেব না। আমরা বলতে চাই, কোনোভাবেই উদ্যানের গাছ কাটাতে দেওয়া হবে না।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, স্বাধীনতার ঊষালগ্ন থেকেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানকে গড়ে তোলা হয়েছে এবং সবুজায়ন করা হয়েছে। এখানে স্বাধীনতা স্মৃতি রক্ষার জন্য নানা পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। কিন্তু এই গাছ কেটে ফেলা কেন হচ্ছে, সেটা আমরা বুঝতে পারছি না। এই গাছগুলো অক্সিজেনের ফ্যাক্টরি। পরিবেশকে রক্ষায় যেখানে গাছ লাগাতে হবে, সেখানে উল্টা কার্যক্রম আমরা দেখছি।

প্রধানমন্ত্রী বলে থাকেন, ‘গাছ লাগান পরিবেশ বাঁচান। একটি গাছ কাটার আগে পাঁচটি গাছ লাগান’  অথচ নাগরিক হিসেবে আমরা এখানকার পরিকল্পনায় বুঝতে পারছি না। আমাদের জানতে দেওয়া হচ্ছে না আসলে এখানে কী করা হচ্ছে। আমরা দেখছি, গাছ কেটে পুঁজিপতিদের আরও ব্যবসার সুযোগ করে দেওয়া হচ্ছে। এটি অত্যন্ত দুঃখজনক।

সুতরাং আমরা বলতে চাই, প্রধানমন্ত্রী আমাদের এই জনমতের প্রতি শ্রদ্ধা দেখান। যে সমস্ত আমলারা আপনাকে এই গাছ কাটার বুদ্ধি দিয়েছে, তাদের সে কু-বুদ্ধি আপনারা শুনবেন না। আপনারা এ দেশের নাগরিকদের প্রতি শ্রদ্ধা দেখান, তাদের দাবি মেনে নেন।

তারা আরও বলেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান রক্ষা করতে গেলে অবশ্যই পরিবেশবান্ধব প্রকৌশলী নিয়োগ করা প্রয়োজন। যিনি গাছ না কেটে, গাছ রেখেই সুন্দর উদ্যান তৈরি করতে পারবেন। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ যাবতকালে যত গাছ কাটা হয়েছে তার বিপরীতে ১০ হাজার গাছ লাগাতে হবে।

আমরা যতক্ষণ না পর্যন্ত জানতে পারব, প্রকৃতপক্ষে উদ্যানের আর কোনো গাছ কাটা না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন সারাদেশব্যাপী চলতে থাকবে। আমরা বারবার বলতে চাই, উদ্যানের গাছ কোনোভাবেই কাটতে দেওয়া হবে না।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন লোক সম্পাদক অনিকেত শামীম, কবি হাসান ফকরী, নোঙর সভাপতি সুমন শামস, চলচ্চিত্র নির্মাতা জুনায়েদ হাকিম প্রমুখ।