প্রেমের বিয়ে, স্ত্রীকে হত্যার পর ৭ টুকরা

চ্যানেল ৯৬বিডি.কম,

গাজীপুর : গাজীপুরে স্ত্রীকে হত্যার পর ৭ টুকরা করেছে স্বামী। এ ঘটনায় অভিযুক্ত স্বামী জুয়েল আহমেদকে (২২) আটক করেছে পুলিশ।

রোববার (৭ মার্চ) দুপুরে হতভাগা স্ত্রী রেহেনা আক্তারের (১৯) লাশের খিন্ডত টুকরা উদ্ধার করা হয়। গাজীপুর সদর উপজেলার মনিপুর এলাকা থেকে মরদেহের খণ্ডিত অংশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত ওই গৃহবধূ  সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বম্ভপুর থানার পলাশ ইউনিয়নের কাচিরগাতি গ্রামের আব্দুল মালেকের মেয়ে। অন্যদিকে আটক জুয়েল আহমেদ সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বাম্ভরপুর উপজেলার পলাশ ইউনিয়নের কাচিরগাতি গ্রামের আবদুল বাতেনের ছেলে।

জয়দেবপুর থানারওসি মামুন আল রশিদ বলেন, ‘জুয়েল আহমেদ ও রেহেনা আক্তার সম্পর্কে বেয়াই-বিয়াইন। প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে তারা দুই বছর আগে বিয়ে করেন। গত দুই মাস ধরে তারা মনিপুর এলাকায় জাকিরের বাড়িতে ভাড়ায় থাকেন। রেহেনা স্থানীয় আরাবী ফ্যাশনে চাকরি করতেন। জুয়েল চাকরি ছেড়ে কাপড়ের ব্যবসা করতেন।

তিনি আরও বলেন, গত বৃহস্পতিবার পারিবারিক কলহের জেরে উভয়ের মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে রেহানাকে মারধর করলে সে অজ্ঞান পয়ে পড়েন। রেহানা মারা গেছে ভেবে গুম করতে জবাই করে মরদেহ ৭টি খণ্ড করেন। পরে খণ্ডগুলো বস্তায় ভরে রাতের আঁধারে একটি ময়লার স্তূপে লুকিয়ে রাখেন।

ওসি বলেন, ‘ময়লার স্তূপে একটি বস্তা দেখতে পান প্রতিবেশী এক যুবক। জুয়েলের আচরণে সন্দেহ হলে তিনি পুলিশকে খবর দেন। পরে বস্তাভর্তি মরদেহের খণ্ডাংশগুলো উদ্ধার করে পুলিশ ।