রোহিঙ্গাদের জন্য নিরাপদ পানি;  ১০ মিলিয়ন ডলার দেবে জাপান

চ্যানেল ৯৬বিডি.কম,

ঢাকা :  টেকনাফে রোহিঙ্গাসহ স্থানীয়দের জন্য নিরাপদ পানি সরবরাহ ও বন্টন ব্যবস্থার উন্নয়নের লক্ষ্যে জাপান সরকার এবং জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা (ইউএনএইচসিআর) প্রায় দশ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সহায়তা দিতে একটি চুক্তি করেছে।

রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) ইউএনএইচসিআর ও ঢাকার জাপান দূতাবাস চুক্তিটি স্বাক্ষর করে বলে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানায় ইউএনএইচসিআরের ঢাকা অফিস।

ইউএনএইচসিআর ঢাকা কার্যালয়ে সংস্থাটির বাংলাদেশের সহকারী প্রতিনিধি ফুমিকো কাশিওয়া ও জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি চুক্তিটি স্বাক্ষর করেন।

ইউএনএইচসিআর জানায়, প্রকল্পটি তিনবছর মেয়াদে বাস্তবায়িত হবে এবং বাংলাদেশ সরকারসহ অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় এবং জেলা প্রশাসক কক্সবাজারের ঘনিষ্ঠ সহযোগিতা ও নেতৃত্বের মাধ্যমে শেষ হবে।

সংস্থাটির বাংলাদেশের সহকারী প্রতিনিধি ফুমিকো কাশিওয়া বলেন, ২০১৭ সালের আগস্ট মাস থেকে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আসা শুরু হলে টেকনাফ-উখিয়ার স্থানীয় জনগোষ্ঠী সর্বপ্রথম রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়াসহ খাবার ও পানি সরবরাহ করে।

স্থায়ী সমাধান না হওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশ সরকার এবং জনগণ উদারভাবে এ সঙ্কটাপন্ন জনগোষ্ঠীর জন্য সহযোগিতা অব্যাহত রেখেছে।

রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি বলেন, ‘বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতায় রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে এখন পর্যন্ত সফলভাবে সহায়তা দেওয়ার জন্য আমি জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থার প্রশংসা করি। এ প্রকল্পটি থেকে স্থানীয় এবং রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী উভয়ই সুবিধা ভোগ করতে পারবে।

আমি আন্তরিকভাবে আশাবাদী যে এ প্রকল্পটি টেকনাফের স্থানীয় জনগোষ্ঠী এবং শরণার্থীদের পানি সমস্যার সমাধানে সহায়তা করবে ও বাংলাদেশের স্থিতিশীল উন্নয়নে অবদান রাখতে সক্ষম হবে।

রাষ্ট্রদূত বলেন, এ সুবিধাভোগীদের জন্য জাপানের মানবিক সহায়তা ১৪০ মার্কিন ডলারে পৌঁছেছে এবং জাপান ফ্রি অ্যান্ড ওপেন ইন্দো-প্যাসিফিকের অনুসরণে বাংলাদেশকে সমর্থন করা অব্যাহত রাখবে।

এ পর্যন্ত আন্তর্জাতিক সংস্থা এবং এনজিওগুলোকে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী ও স্থানীয় জনগোষ্ঠীর উভয়কে সহায়তা করার জন্য প্রায় ১৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার অনুমোদন করেছে জাপান সরকার ।