শামিমা সাম্মী, সফল ক্ষুদ্র উদোক্তা

চ্যানেল ৯৬বিডি.কম,

ঢাকা : শামিমা সাম্মী, ঠাকুরগাঁও এর মেয়ে, হিবিজিবির কর্নধার। ব্যবসা শুরুর আগে অনেক প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছেন। অনেকে ভয় দেখিয়েছেন লোকসানের। তারপরেও থেমে থাকেননি তিনি।

নিজের মনোবল নিয়ে সবকিছুকে পেছনে ফেলে এগিয়ে গেছেন। আস্তে আস্তে অনলাইন মার্কেটে নিজের অবস্থান কর নিয়েছেন। আজ তিনি সফল ক্ষুদ্র উদোক্তা। কাজ করছেন শাড়ি, থ্রি-পিছ নিয়ে। পৃষ্ঠেপাষকতা পেলে যেতে চান আরো অনেক দূর…

শামিমা সাম্মী বলছিলেন শুরুর সেই গল্পটা.. SSC ’17 ঠা. স. বা. উ. বি. থেকে, HSC ’19 বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ কলেজ, ঢাকা থেকে। বর্তমানে  RUET এ, Urban & Regional Planing 1st Year এ অধ্যায়ররত।

‘১৭ সালের পর কখনো এতদিন বাসায় থাকা হয়নাই। ১ম দিকে ভাবতাম হয়ত রোজার ইদের পর ঠিকহবে, আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাব। তারপর মনে হলো কুরবানী ঈদের পর আর কোনোভাবেই সরকার বন্ধ রাখবে না।

কিন্তু তারপরও যখন হলো না, তখন ভাবলাম নিজের হাতখরচ টা নিজে থেকেই কিভাবে জোগাড় করা যায়। আমি যখন ঢাকায় ছিলাম তখন থেকেই বাবুবাজার, পুরান ঢাকা, গুলিস্তান, ইসলামপুর এসব ঘুরে ঘেটে নিজের জিনিস কিনতাম। শুরু করলাম তাদের খোঁজাখুঁজি। পেয়েও গেলাম ইন্টারনেটের কল্যানে।

তারপর আমার পরিচিতি কিছু মানুষের সাথে প্ল্যান শেয়ার করলাম। তারা হেসে উড়িয়ে দিলো। “সেল হবেনা, ভার্সিটিতে পড়তেসো, এখন এসব বিক্রি করবা? সম্পূর্ণ লস খাবা এই সেই আরোও কত-কি?”

হাল ছাড়লাম না। জীবনের শেষ অব্দি বাবা মা’র পর কেও থাকলে তা থাকবে বন্ধুরা। তো আমার আমার বন্ধুকে নিয়ে শুরু করলাম। ১ম এ শাড়ি আনলাম, ১০পিস। আনার কিছুক্ষণের মাঝেই সেল হয়েগেলো।এখন থ্রিপিস অ এনেছি।এরপর থেকে আলহামদুলিল্লাহ  অনেক সাড়া পেয়েছি।

আমার অনলাইনের থেকে বাসায় বেশি বিক্রি হয়। মাশাল্লাহ, এখন আমাকে বা আমার ফ্রেন্ডকেবাসা থেকে হাতখরচ চেয়ে নিতে হয়না।নিজের পছন্দমত টুকটাক সবকিছুই নিজে কিনতে পারি।