গেনজি উড়িয়ে ট্রেন থামাল কিশোর, দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা

চ্যানেল ৯৬বিডি.কম,

জয়পুরহাট : জেলার পাঁচবিবি উপজেলার খাসবাগুরী এলাকায় সাজিদ হোসেন নামের এক কিশোরের সাহসিকতায় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে পঞ্চগড় থেকে ঢাকাগামী আন্তঃনগর দ্রুতযান এক্সপ্রেস এবং ওই ট্রেনের শতশত যাত্রীর জীবন। রোববার দুপুর একটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

জেলার পাঁচবিবি উপজেলার খাসবাগুরী গ্রামের আনোয়ার হোসেন ও সহিদা বেগমের পুত্র কিশোর সাজিদ হোসেন (১৫) পাঁচবিবি উপজেলার একটি বেসরকারি বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনীর শিক্ষার্থী।

একই গ্রামের রেজাউল করিম, সাজিদের সহপাঠি সজিব, মোজাম্মেল হকসহ এলাবাসীরা জানান, রোববার দুপুরে সাজিদের মা সহিদা বেগম বাড়ির পার্শবর্তী রেললাইন পারাপার হচ্ছিলেন।

এ সময় তিনি রেললাইনে একটি ফাটল দেখে সাথে সাথে একটি লাঠিতে লালরঙের গেঞ্জি বেঁধে ছেলে সাজিদকে তা উড়াতে বলেন। পরে সাজিদ লালগেঞ্জি উড়িয়ে থামিয়ে দেয় ঢাকাগামী আন্তঃনগর দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেনটিকে। এতে রক্ষা পায় ট্রেনে থাকা শতশত যাত্রীর জীবন। এ কাজের জন্য সাজিদকে অভিনন্দন জানিয়েছে এলাকাবাসী।

কিশোর সাজিদ হোসেন জানায়, তার মায়ের কথামতো ট্রেনের যাত্রীদের জীবন বাঁচাতেই লালগেঞ্জি নিয়ে সে রেললাইনে দাঁড়িয়েছিল। ট্রেন থেমে যাওয়ার পর ট্রেনের চালক ও যাত্রীরা সাজিদের প্রশংসা করেন।

রেললাইন মেরামত কর্মচারী (কি-ম্যান) রায়হান হোসেন জানান, সাজিদ ট্রেন থামানোর পর রেলওয়ে কর্মকর্তাদের নির্দেশে ঘটনাস্থলে এসে রেললাইনের ফাটল জোড়া লাগানো হয়েছে। এতে প্রায় একঘন্টা পর রেল চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জয়পুরহাট রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার হাবিবুর রহমান জানান, লালগেঞ্জি উড়িয়ে সাজিদ ট্রেন থামানোর কারনে একটি মারাত্মক দুর্ঘটনা থেকে ট্রেন ও যাত্রীরা রক্ষা পেয়েছেন। রেল বিভাগের পক্ষ থেকে কিশোর সাজিদকে ধন্যবাদ জানানো হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।